আবারো আলোচনায় শাহরাস্তি ইউএনও, ব্যবস্থা নিতে শাহ কামালের নির্দেশ

কচুয়ার ডাকঃ

মহামারী করোনা দুর্যোগ মোকাবেলায় সরকারের গৃহীত কার্যক্রম নিয়ে শনিবার দুপুরে মতবিনিময় করেছেন চাঁদপুর জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের সচিব শাহ কামাল। জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় চাঁদপুরে কথিত লকডাউন নিয়ে সচিব ক্ষোভ প্রকাশ করেন। সেই সাথে বিভিন্ন উপজেলায় ত্রাণ কার্যক্রমে সমন্বয়হীনতা ও অনিয়মের বিষয়ে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

শাহরাস্তি উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তার কর্মকর্তা নিয়ে তিনি তাকে ভৎসনা করেন এবং জেলা প্রশাসককে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন।

সচিব শাহ কামাল বলেন, চাঁদপুরে উপজেলা ভিত্তিক করোনা দুর্যোগে ত্রাণের পরিবহন খরচ এখনো অনেক ইউপি চেয়ারম্যানগন পাননি। ইউএনওরা কেনো এখনো এসব খরচ নিজের হাতে রাখছেন? এ জন্য শাহরাস্তি ইউএনওকে ভর্ৎসনা করেন সচিব। সচিব ইউএনও শাহরাস্তিকে বলেন তুমি কি আমাকে আইন শিখাইবা? ডিসি এবং এডিসিকে নির্দেশ দিয়েছেন শাহরাস্তি ইউএনওর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য।

সচিব বলেন, হাজীগঞ্জ, শাহরাস্তি এবং ফরিদগঞ্জে ত্রাণ বিতরণে কোনো সমন্বয় নেই। সেখানে অনিয়ম হচ্ছে এই তথ্য সচিবের কাছে আছে। সচিব ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন চাঁদপুরের কথিত লকডাউনের অবস্থা দেখে। তিনি সভায় আসতে নিকটবর্তী মুন্সীরহাট বাজারের অবস্থা দেখে ক্ষোভের কথা জানান।
সচিব শাহ কামাল বলেন, চাঁদপুর শহরে কোনো সিএনজি, অটোরিকশা, অটোবাইক ও ব্যাটারি চালিত রিক্সা চলাচল পুরোপুরি বন্ধ থাকবে। এদেরকে ত্রাণ দেয়া হবে। পুলিশ সুপার মেয়রের সাথে সমন্বয় করবেন। আইনশৃঙ্খলায় সন্তোষ প্রকাশ করেন সচিব।

সভায় উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সুপার, সিভিল সার্জন, এডিসি রেভিনিউ ও এডিসি জেনারেল, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ওসমান গনি পাটোয়ারী, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাসির উদ্দিন আহমেদ, সেক্রেটারি আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল, এনএসআই যুগ্ম পরিচালক, আওয়ামী লীগ নেতা জিল্লুর রহমান জুয়েল,হাইমচর উপজেলা চেয়ারম্যান হোসেন পাটওয়ারী, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি গিয়াসউদ্দিন মিলন ও সেক্রেটারি এ এইচ এম আহসান উল্লাহ।