কচুয়ায় বায়েক মোরে প্রাইভেটকারের সাথে মটর চালিত অটোরিক্সা সংঘর্ষ  আহত ৪ জন।

কচুয়ার ডাকঃ 

কচুয়া  উপজেলারর বায়েক মোর থেকে একটু দক্ষিনে নতুন রাস্তার বাঁকা মোরটিতে নোয়াখালী থেকে ঢাকা যাওয়ার পথে এবং মটর চালিত অটোরিক্সাচালক বায়েক মোরের দিকে যাওয়ার পথে প্রাইভেটকারটি এ সময় অটোরিক্সাটিকে ধাক্কা মারে।

অটোরিক্সাটিকে ধাক্কা মেরে, প্রাইভেটকারটি বায়েক মোর খালটিতে, অটোরিক্সায় থাকা ২ জন প্যাসেঞ্জার অটোচালক সহ প্রাইভেটকারটি পড়ে যায়।

প্রাইভেটকারটি পড়ার পাশের স্বমেইলের কাশেম নামে এক লোক দেখতে পায় শুধুমাত্র একটি অটোরিক্সা উল্টিয়ে পড়ে আছে,এই দেখে কাশেম একটু সামনে খালটির পাড়ে দেখতে পায় একটি প্রাইভেটকার পানিতে পড়ে আছে।

কাশেম বলেন, আমি ঢাকাঢাকি করে আমার সহপাঠী ভাই সাইফুলকে ঢেকে প্রাইভেটকারে থাকা লোকগুলোকে উদ্ধার করি।

প্রাইভেটকারে থাকা লোকদের উদ্ধার করার পড়, সাইফুল বলেন আমার পায়ের নিচে একটি লোক ধাক্কা খায়। ডুবদিয়ে ৪ জন লোককে উদ্ধার করি। তাদের প্রায় ১০ মিনিট পড় উদ্ধার করা হয়।

সাইফুল ও কাশেম বলেন উদ্ধার কারীদের মধ্যে তারা দুজনই আশঙ্কাজনক, তারা বেঁচে আছে না মারা গেছে তা আমরা জানিনা।তাদের ৪ জনকে স্হানীয় লোকদের সহযোগিতায় কচুুয়া মেডিকেল পাঠানো হয়েছে বলে ও জানা গেছে।

দুর্ঘটনাকৃত প্রাইভেটকার ও অটোরিক্সাটি পানির থেকে তোলার পড় খবর পেয়ে সাচার ফাঁড়ির পুলিশ এসে, প্রাইভেটকার এবং অটোরিক্সাটি উদ্ধার করে নিয়ে যান।

প্রাইভেটকারে থাকা মোঃসেলিম বলেন, আমাদের মাঝে কেউ গুরুতর আহত হয়নি।তবে আমাদের প্রাইভেটকারের ড্রাইভারটিকে খোঁজে পাচ্ছিনা।

এ দিকে সাচার ফাঁড়ির পুলিশ প্রাইভেটকারটি উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়ার সময়,প্রাইভেটকারের মালিক ও ড্রাইভারটির বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ ডায়রি লিখেন-যার গাড়ির নং ঢাকা মেট্রো-গ ১৯-৮৫৭৫।

আমি স্হানীয় লোকগুলোকে অটোরিক্সাচালকের ব্যাপারে জানতে চাইলে, সাধারণ জনগন অটোরিক্সাচালকের বিষয়ে কেউ কিছু বলতে পারেন নাই। তবে কেউ বলছেন অটোরিক্সাচালকটির বাড়ী বড়দৈল।

স্হানীয় লোকদের সাথে কথা বলে জানতে পারি এখানে কিছুদিন আগে একটি দুর্ঘটনায় একটি লোক মারা গিয়াছেন।স্বানীয় লোকজন আরোও বলেন, এই দুইটি রাস্তার বাঁকা মোরগুলোতে দু-পাশেই একটি করে স্পীড ব্যাকার স্হাপন করা খুবই প্রয়োজন।যদি দুটি স্পীড ব্যাকার দেওয়া হয়,তাহলে দুর্ঘটনার হাত থেকে সাধারন জনগন বাঁচতে পাড়বে বলে ও তারা জানান।

এই স্পীড ব্যাকার স্হাপনের বিষয়ে মাননীয় সংসদ সদস্য ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর স্যার, সংশ্লিষ্ট্য ইউ এন ও এবং স্হানীয় চেয়ারম্যান, নেতাকর্মিদের নিকট সু-দৃষ্টি কামনা করছেন।