কচুয়া উপজেলায় এই প্রথম আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংঘঠনের অংশগ্রহনে নিজ উপজেলায় রাজনৈতিক স্বীকৃতি নিলেন সেলিম মাহমুদ!

কচুয়ারডাক বিশেষ প্রতিবেদনঃ কচুয়া উপজেলায় এই প্রথম আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংঘঠনের অংশগ্রহনে রাজনৈতিক স্বীকৃতি নিলেন সেলিম মাহমুদ,তার আগে তিনি মিলাদ মাহফিল সেবামুলক কবর জিয়ারত কুলখানিতে আসা যাওয়া সীমাবদ্ধ থাকলেও ছাত্রলীগের ৭৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে গতকাল কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ যুবলীগ ও ছাত্রলীগের উপস্থিতি ছিল চোখে পরাড় মতো। দীর্ঘ ৩২ মিনিটের বক্তব্যে বেশির ভাগ সময় তিনি তার নিজের ব্যাক্তিগত রাজনৈতিক ও পারিবারিক জীবন নিয়েই সময় কাটান, তিনি ড.মহীউদ্দিন খান আলমগীর এম পির প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ ও ছাত্রলীগকে ধন্যবাদ জানান, এই সময় ছাত্রলীগ শ্লোগানে শ্লোগানে মূখরীত করে তোলেন।

গত ২রা আগস্ট কচূয়া উপজেলা হাঁসপাতালে আবুল খায়ের গ্রুপের ক্যানোলা প্রোগ্রাম করতে এসে হেলালউদ্দীনের লাগামহীন অসৌজন্যমুলক কথাবার্তা এবং উপজেলা চেয়ারম্যান কে দেখে নেয়ার হুমকি,আওয়ামী রাজনীতিতে সেলিম মাহমুদ কে কচুয়ার জনগনের বিরুদ্ধে তুলে দেয়ায় হেলাল উদ্দিনকে দায়ী করেন, দীর্ঘদিন রাজনীতিতে খানিকটা সমালোচনার ঝড় তুলেলেও অতঃপর হেলাল উদ্দিনের রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিল, মনোনয়ন বানিজ্যসহ বিভিন্ন অপকর্মের কথা জানতে পেরে এবং সেলিম মাহমুদ-শিশির ধন্ধ প্রকাশ্যে রুপ দেয়ার জন্য হেলাল উদ্দিন কে দায়ী করে তাকে দূরে সড়িয়ে রাখেন সেলিম মাহমুদ, সেই থেকে হেলাল উদ্দিন কে সেলিম মাহমুদের কোন আলোচনা প্রোগ্রামে আর রাখা হয় নি।