কচুয়া উপজেলা চেয়ারম্যান কে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করা মানে উপজেলার জনগনকে নীপিড়িন ও বঙ্গবন্ধু কন্যার বিরুদ্ধে গিয়ে তার পরীক্ষিত প্রার্থীর মনোনয়ন প্রজ্ঞা ও নৌকার বিরুদ্ধাচারন করা নয় কি? অবিলম্বে সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার কর করতে হবে-কচুয়ার লাখো জনতা!

কচুয়ারডাক বিশেষ প্রতিবেদনঃ কচুয়ায় উপজেলায় সত্যিকার জনগনের প্রতিনিধিকে কখনো মিথ্যা মামলা, হামলা ও হয়রানি করে জনগনের ভালোবাসা থেকে বিচ্ছিন্ন করা যায় না তা আবারো উপজেলায় প্রমানিত হলো, দীর্ঘদিন ৩মাস ১২ দিনের কারামুক্তি ও চিকিৎসা শেষে প্রায় ৬মাস পর উপজেলার লাখো জনতার ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত হলেন উপজেলা চেয়ারম্যান জয় শাহজাহান শিশির!! জয় হউক কচুয়ার মেহনতি আপামর জনগনের!!

কচুয়ারডাক এক অন্যায়ের প্রতিবাদী কন্ঠ, পাশেই থাকুন, সত্য প্রকাশে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

“কচুয়া উপজেলার মেহনতী মানুষে একটাই দাবী আর তা হলো,কচুয়া উপজেলা চেয়ারম্যান কে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করা মানে উপজেলার জনগনকে নীপিড়িন ও বঙ্গবন্ধু কন্যার বিরুদ্ধে গিয়ে তার পরীক্ষিত প্রার্থীর মনোনয়ন প্রজ্ঞা ও নৌকার বিরুদ্ধাচারন করা নয় কি? অবিলম্বে সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার কর করতে হবে বলে কচুয়ার লাখো জনতার পদধ্বনিতে ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত !

লাখো জনতার দাবী ভোট প্রদান করেছি উপজেলা চেয়ারম্যান শাহজাহান শিশিরের কাছ থেকে সেবা পেতে অন্য কারো কাছ থেকে নয়, অন্যথায় ভোটারদের সাথে প্রতারনা করা হবে, আমরা চাই না আরো একটি উপজেলা নির্বাচন এই উপজেলায় হউক, রাস্ট্রের অর্থের অপচয় কোনভাবেই সম্ভব নয়। বিচারাধীন মামলা আদালতের প্রতি শ্রদ্ধা সবার রয়েছে। যারা মামলাগুলি করিয়েছেন তারা অনতিবিলম্বে আশা করছি মামলাগুলি নিজ দায়িত্বে তুলে নেবেন, কচুয়া উপজেলায় কোন অন্যায় কাজ হলে তার শাসন করার অধিকার উপজেলার অভিভাবক হিসেবে তার রয়েছে, সেই মেন্ডেট জনগন তাকে দিয়েছে বলে আগত ভক্ত্রা দাবী করেন।

কচুয়া উপজেলাকে অস্থীতিশীল করতে কারা এ ধরনের ন্যাকারজনক মামলা করেছেন তা ইতিমধ্যেই সবাই জেনে গেছেন, মামলার বাদী স্থানীয় একাডেমিক ইঞ্জিনিয়ার নুরুল ইসলাম বউ পিটিয়ে জেল হাজতে রয়েছেন তার বিরুদ্ধে রয়েছে দুর্নীতির অনেক অভিযোগ , অন্য একটি চাঁদপুরে ডিজিটাল মামলা করিয়েছেন হেলাল উদ্দিন, অভিযোগ ছিল উপজেলা চেয়ারম্যান এইচ টি ইমামের বিরুদ্ধে ফেসবুকে লিখেছেন, আর এই এইচ টি ইমামের নাম দিয়েই সেলিম মাহমুদ পাপুল কে সাংসদ বানিয়ে বাংলাদেশ মধ্যপ্রাচ্য থেকে আজ বিচ্ছিন্ন হতে যাচ্ছে, হেলাল উদ্দিন ফেসবুকে আদালত অবমাননাকর লিখা লিখেছেন তা প্রমানিত হলে তার বিরুদ্ধেও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হতে পারে,  আরও একটি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপপ্রয়োগ সেলিম মাহমুদ ঢাকায় তার অনুগত এক আইনজীবী ধানমণ্ডি থানায় করিয়েছেন যা অত্যান্ত হাস্যরসের জন্ম দিয়েছে।  কচুয়া উপজেলা জনগনের দাবী, শাহজাহান শিশিরের বিরুদ্ধে সকল ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে অবিলম্বে স্বপদে বহাল চাই, অন্যথায় প্রশাসনে দায়িত্বপ্রাপ্তদের অবিলম্বে প্রত্যাহার চাই”।

প্রায় ১৫০০ মোটর সাইকেল জীপ,ভেন, কার সহ দীর্ঘদিন কারাবরণ শেষে বিশাল মোটর শোভাযাত্রা নিয়ে কচুয়ায় আসেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শাহজাহান শিশির। ঢাকা থেকে গতকাল মঙ্গলবার সাড়ে ১২টার দিকে শাহজাহান শিশির কচুয়ার প্রবেশদ্বার বায়েক মোড়ে আসলে বিপুলসংখ্যক কর্মীসমর্থকরা তাঁকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেয়। পরে তিনি মোটর শোভাযাত্রা নিজ বাড়ি উপজেলার জগতপুরে আসেন। এ সময় শত শত লোকজন তাকে একনজর দেখতে সকাল ১০টা থেকে রাস্তার দুপাশে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে থাকে। এ সময় তিনি রাস্তায় নেমে আসা লোকজনদেরকে গাড়ি থেকে হাত নেড়ে অভিনন্দন জানান। রাস্তায় নেমে আসা লোকজনদেরকে অভিনন্দন জানিয়ে বায়েক থেকে জগতপুর পর্যন্ত প্রায় ৪০ কিলোমিটার রাস্তা পাড়ি দিতে ৩ ঘণ্টারও বেশি সময় লেগে যায়। বাড়িতে পেঁৗছেই তিনি তাঁর পিতা-মাতার কবর জিয়ারত করেন।

শাহজাহান শিশির টানা ৩ মাস ১২ দিন কারাভোগ করার পর বিজ্ঞ উচ্চ আদালত (হাইকোর্ট) থেকে জামিনপ্রাপ্ত হয়ে ৭ ডিসেম্বর সোমবার সন্ধ্যায় কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে ছাড়া পান। কারাগারে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ায় জামিন পেয়ে তিনি কচুয়ায় না এসে ঢাকার বাসায় চলে যান।

গত ১৯ জুলাই কচুয়া উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন কচুয়া শহীদ স্মৃতি বালিকা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন ৬ তলাবিশিষ্ট ভবন নির্মাণে কাজে অনিয়মের ঘটনায় চাঁদপুর শিক্ষা প্রকৌশলী বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী নূরে আলমের সাথে চেয়ারম্যান শিশিরের বাক্বিত-া হয়। একপর্যায়ে প্রকৌশলী লাঞ্ছিত হয়। এ নিয়ে ওইদিন রাতে প্রকৌশলী নূরে আলম বাদী হয়ে কচুয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় উপজেলা চেয়ারম্যান শাহজাহান শিশির প্রধান আসামী হিসেবে গ্রেফতার হন।

২৩ জুলাই স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব জহিরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক আদেশের মাধ্যমে শাহজাহান শিশিরকে উপজেলা চেয়ারম্যান পদ থেকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়।

কচুয়ারডাক ”মুক্তকথা” থাকছেন কচুয়া উপজেলা চেয়ারম্যান শাহজাহান শিশির (সাময়িক বরখাস্ত) ও নুরুন নাহার! – YouTube