কচুয়া বাজারে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ১৩ হাজার টাকা জরিমানা, ১৮৯ কেজি পলিথিন জব্দ!

কচুয়া উপজেলায় গতকাল ১৪ সেপ্টেম্বর সোমবার পরিবেশ অধিদপ্তর, চাঁদপুর জেলা কার্যালয়ের উদ্যোগে কচুয়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট একি মিত্র চাকমার নেতৃত্বে পরিবেশ অধিদপ্তর, চাঁদপুরের উপ-পরিচালক এএইচএম রাসেদের উপস্থিতিতে কচুয়া উপজেলার মধ্যবাজারে অবস্থিত কাজী মেডিকেল সেন্টার নামক ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে অপরিচ্ছন্নভাবে বর্জ্য অপসারণের কারণে ও একই এলাকায় নিষিদ্ধ ঘোষিত পলিথিন শপিংব্যাগের বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হয়েছে। মোবাইল কোর্ট পরিচালনায় আনুমানিক একশত ঊননব্বই কেজি নিষিদ্ধ ঘোষিত পলিথিন শপিংব্যাগ জব্দসহ সর্বমোট তের হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

কচুয়া উপজেলার মধ্যবাজারে অবস্থিত কাজী মেডিকেল সেন্টার নামক ডায়াগনস্টিক সেন্টারে পরিবেশগত ছাড়পত্রের শর্ত মোতাবেক ঢাকনাযুক্ত বিন না থাকা, অপরিচ্ছন্ন পরিবেশ, বর্জ্য অপসারণের রেজিস্ট্রার না থাকাসহ বিভিন্ন অভিযোগে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। মোবাইল কোর্ট পরিচালনাকালে তাদেরকে পরিবেশগত ছাড়পত্রের শর্ত অনুযায়ী বর্জ্য অপসারণসহ অন্যান্য বিষয়সমূহ মেনে চলার জন্যে নির্দেশ প্রদান করা হয়। এছাড়া ভবিষ্যতে একই অপরাধ করা হলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে মর্মে সতর্ক করা হয়।

এর আগে কচুয়া উপজেলার মধ্যবাজারের যেসব দোকানে নিষিদ্ধঘোষিত পলিথিন শপিংব্যাগের বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্টর্ পরিচালিত হয়, সেগুলো হচ্ছে : মোঃ কামাল হোসেন, স্বত্বাধিকারী, মেসার্স কামাল স্টোর, ১৮২ কেজি পলিথিন শপিংব্যাগ, জরিমানার পরিমাণ পাঁচ হাজার টাকা; মোঃ শাহআলম, স্বত্বাধিকারী, মেসার্স মিম ক্রোকারিজ, ৫ কেজি পলিথিন শপিংব্যাগ, জরিমানার পরিমাণ এক হাজার পাঁচশত টাকা; মোঃ শাহআলম, স্বত্বাধিকারী, মেসার্স শাহআলম স্টোর, ২ কেজি পলিথিন শপিংব্যাগ, জরিমানার পরিমাণ এক হাজার পাঁচশত টাকা।মোবাইল কোর্টে উপস্থিত ছিলেন পরিবেশ অধিদপ্তর, চাঁদপুরের উপ-পরিচালক এএইচএম রাসেদ, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ রাকিবুল ইসলাম, পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিদর্শক উত্তম কুমার, নমুনা সংগ্রহকারী মোঃ মোবারক হোসেনসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যবৃন্দ।

জব্দকৃত পলিথিন শপিংব্যাগ বিধিসম্মতভাবে ডিসপোজালের জন্যে পরিবেশ অধিদপ্তরে হস্তান্তর করা হয়েছে। ভবিষ্যতেও এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে।