কচুয়া সাচার ইউনিয়ন সাবেক জনপ্রিয় চেয়ারম্যান ওসমান গনি মোল্লার অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করতে দলমত নির্বিশেষে চশমা প্রতীকে ভোট চাইলেন এস.এম শুভ (সেলিম মজুমদার)

আগামীকাল মঙ্গলবার ২০ অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য সাচার ইউনিয়ন পরিষদ উপ-নির্বাচন উপলক্ষে প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রচারণার পেষ্টারে ছেঁয়ে গেছে সমগ্র নির্বাচনী এলাকা। প্রার্থীগন ভোর থেকে শুরু করে মধ্য রাত পর্যন্ত ভোটারদের ধারে ধারে ভোট প্রার্থনা করে প্রচারনায় ব্যাস্ত সময় পার করছেন।
সাচার ইউনিয়ন পরিষদ উপ-নির্বাচনে চশমা প্রতীকের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী বজুরীখোলা গ্রামের কৃতিসন্তান এস.এম শুভ (সেলিম মজুমদার) ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে ভোটারদের সাথে গনসংযোগ, পথসভা,লিফলেট বিতরণ ও মতবিনিময় করে চলছেন। তিনি অন্য সব প্রার্থীদের চেয়ে বিরামহীন প্রচার- প্রচারনায় অনেকটা এগিয়ে রয়েছেন বলে স্থানীয় লোকজন মনে করছেন।
তিনি দিনভর সাচার ইউনিয়নের রাগদৈল, বজুরী খোলা,জয়নগর, বায়েক এলাকার প্রতিটি বাড়ি বাড়ি গিয়ে চশমা প্রতীকে ভোট চেয়ে ভোটারদের সাথে তিনি কুশল বিনিময় করেন। এসময় রাগদৈল বাজারে পথসভায় বক্তব্য প্রদানকালে তিনি বলেন, আমি এ এলাকার মানুষের পাশে সব সময় আছি এবং থাকব। আমার এলাকার জনপ্রিয় চেয়ারম্যান ওসমান গনি মোল্লার মৃত্যুর পর এলাকার জনগনের অনুরোধে আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করছি। আমাকে ২০ অক্টোবর নির্বাচনে চশমা প্রতীকে ভোট দিয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত করলে আমি ওসমান গনি মোল্লার অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করে আপনাদের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করব। সর্বপোরি সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষে আমি সবাইকে নিয়ে একসাথে কাজ করব।
তাই ২০ অক্টোবর নির্বাচনে সাধারণ ভোটারগন আমাকে এলাকাবাসী দলমত নির্বিশেষে চশমা প্রতীকে ভোট দিয়ে বিপুল ভোটে বিজয়ী করবেন ।

এর আগে মনির হোসেন তার প্রতিদ্ধন্ধী চশমা প্রতীকের প্রাথী এসএম শুভ কে মুঠোফোনে মনোনয়ন প্রত্যাহার করারজন্য হুমকী দিলে তা ভাইরাল হয়ে যায়, কচুয়া উপজেলার ১নং সাচার ইউনিয়নে উপ-নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী এসএম শুভ ( সেলিম মজুমদার) নির্বাচনী প্রচারণায় হামলা ও নেতাকর্মীদের মারধরের অভিযোগ উঠে, নৌকার প্রার্থী মনির হোসেনের ছেলে সোহেল তানভীরের নেতৃত্বে চশমা মার্কার নেতাকর্মীদের উপর এ হামলা ও মারধর করা হয়েছে বলে স্বতন্ত্র প্রার্থী এসএম শুভ দাবি করেন।

মনির হোসেনের বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ রয়েছে তার মধ্যে জায়গা দখল, অন্যতম সম্প্রতি সাচার বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের নিয়োগ প্রক্রিয়া বাতিল ও পূন-নিয়োগ কেন্দ্র করে ১নং প্রথম স্থান অর্জন কারীকে নিয়োগ না দিয়ে পুনঃনিয়োগ দিয়ে ৭নংস্থান অধিকার কারীকে নিয়োগ প্রদান করা হলে বিদ্যালয়ের সভাপতি হিসেবে স্থানীয়ভাবে তিনি  বিতর্কিত হন।

জানা গেছে, গত ১১/১০ রবিবার ১১টার দিকে সাচার ইউনিয়নের বায়েক মোড় সংলগ্ন ব্রীজের কাছে চশমা মার্কার মিছিল নিয়ে প্রচারনা কালে নৌকা মার্কার প্রার্থী মনির হোসেনের ছেলে সোহেল তানভীর, কাউছার হোসেন সাদ্দাম,ইমরান হোসেন বুশ,ইয়াছিন আরাফাত লাদেন ও সাচার ডিগ্রি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক প্রদীপ চন্দ্র দেশীয় অস্ত্র শস্ত্র দিয়ে চশমা মার্কার কর্মী রাগদৈল গ্রামের গাজী জাহাঙ্গীর আলম (২৭), লোকমান (৩৫), বজুরীখোলা গ্রামের গিয়াস উদ্দিন (২৫),নাছির উদ্দিন মজুমদার (৩২),দুধ মিয়া (৫৮) ও আব্দুর রহমান (২৩) কে কুপিয়ে মারধর করে গুরুতর রক্তাক্ত জখম করে। এসময় স্থানীয় লোকজন ছুটে এনে আহতদেরকে উদ্ধার করে দাউদকান্দি (গৌরিপুর) উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।
চশমা মার্কার স্বতন্ত্র প্রার্থী এসএম শুভ (সেলিম মজুমদার) জানান, প্রতিপক্ষ নৌকার প্রার্থী মনির হোসেন আমাকে বিভিন্ন ভাবে ভয় ভীতি, প্রচারণায় বাধা ও হুমকি-ধমকি দিয়ে আসছে। এতে নির্বাচনের সুষ্ঠ পরিবেশ বজায় রাখা নিয়ে শঙ্কিত আছি, তারা মনির হোসেন ও তার সন্ত্রাসীদের অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবী জানান।