ঘুড়ির সূতায় জড়িয়ে থাকা কবুতর উদ্ধার করল ফায়ার সার্ভিস

 কচুয়ার ডাক 

কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চত্ত্বরে শনিবার দুপুরের পর থেকে কড়ই গাছের ঢালে আটকানো ঘুড়ির সূতার সঙ্গে পা জড়িয়ে আটকে ছিল কবুতরটি। প্রাণপণ চেষ্টা করছিল সেখান থেকে ছোটার জন্য, কিন্তু কিছুতেই ছুটতে পারছিল না। পথচারীরা একপলক দেখেই যে যার কাজে ছুটে চলছে।

শনিবার বিকেলে বাসার বারান্দা থেকে হঠাৎ কবুতরটির মরণপণ ছটফটানি চোখে পড়ে সাংবাদিক ইউনুছের। সঙ্গে সঙ্গেই তিনি ছুটে গিয়ে গাছের কাছে এসে আশেপাশের অনেককে অনুরোধ জানালেন, কবুতরটিকে বাঁচানোর জন্য। সেখানেও বিফল। উপায় না দেখে ফায়ার সার্ভিসে ফোন করে জানালেন বিস্তারিত।

কিছুক্ষণের মধ্যেই গাড়ি নিয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ছুটে এলেন ঘটনাস্থলে। পথচারীরা থমকে দাঁড়ালেন। উৎসুক লোক জড়ো হয়ে গেলেন ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি ঘিরে। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ২ ঘন্টা প্রাণপন চেষ্টার পর সেই কবুতরটিকে ফিরিয়ে আনলেন নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে। কবুতরটি মুক্তি পেল প্রতি মুহুর্তের অসহনীয় যন্ত্রণা থেকে। একটি পাখির জন্য ফায়ার সার্ভিসের এমন প্রচেষ্টা প্রশংসা কুড়িয়েছে সাধারণ মানুষের মনে।

কবুতরটি উদ্ধার কাজে অংশগ্রহণ করেন, স্ট্রেশন অফিসার ইমাম হোসেন, সহকারি অফিসার রফিকুল ইসলাম সহ একজন দমকল বাহিনী।

এমন অভূতপূর্ব ঘটনাটি ঘটেছে গত শনিবার সন্ধায় কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চত্ত্বরে।

কচুয়া ফায়ার সার্ভিসকে ধন্যবাদ জানিয়ে সাংবাদিক ইউনুছ বলেন, অনেক কষ্টের অভিযানের পর কবুতরটি উদ্ধার হল এবং সেটিকে জীবিত বাঁচানো গেল। কবুতরটি ছোটার পরই সবার হাতে করতালি। আমি কী বলে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের ধন্যবাদ দেবো তার ভাষা খুঁজে পাচ্ছিলাম না। একটা কবুতরকে বাঁচানোর জন্য তারা যে মনোভাব দেখিয়েছেন, তা সত্যিই অতুলনীয়। তাদের প্রতি সাধারণ মানুষেরও আস্থা ও ভালোবাসা দেখলাম আজ।