ডেন্টিস্ট সোহাগ ও সাজেদা ফাউন্ডেশনের ম্যানেজার সহ ৪ জনের করোনা শনাক্ত

কচুয়ার ডাক

চাঁদপুরের কচুয়ায় করোনা সংক্রমণের পর একদিনে সর্বোচ্চ ৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে শুক্রবার। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: সালাহ উদ্দিন মাহমুদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সুত্র জানায়, শুক্রবার মোট রিপোর্ট এসেছে ১২ জনের। এর মধ্যে ৪ জন পজিটিভ আর ৮ জন নেগেটিভ। নতুন আক্রান্তরা হলেন, পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ড (মাছিমপুর) গ্রামের জাহাঙ্গীর আলম মল্লিক, ৫নং ওয়ার্ড কড়ইয়া গ্রামের মানিক মজুমদার সোহাগ, কড়ইয়া ইউনিয়নের আকিয়ারা গ্রামের আবু সালেহ, গোহট উত্তর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড পালগিরি গ্রামের আলমগীর মেম্বার, তালতলী গ্রামের মোজাম্মেল হক।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: সালাহ উদ্দিন মাহমুদ জানান, কচুয়ায় করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে। দিন দিন করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। আরও নতুন নতুন উপসর্গ দেখা দিচ্ছে। আজকে ১২ জনের রির্পোটের মধ্যে সর্বোচ্চ ৪ জনের করোনা পজিটিভ এসেছে। পুরোনোদের সংস্পর্শে এসে নতুন রোগীরা আক্রান্ত হচ্ছেন। এ কারণে কচুয়ার অবস্থা আরও খারাপের দিকে যাচ্ছে। কারও মধ্যে সামান্য পরিমাণে উপসর্গ দেখা দিলে অথবা সন্দেহ হলে চিকিৎসকের পরামর্শসহ করোনা পরীক্ষা করাতে হবে। নমুনা দেওয়ার পাশাপাশি আইসোলেশনে থাকতে হবে। রোগীর স্বজনদেরও সচেতন হতে হবে। আজকে যারা আক্রান্ত হয়েছেন তাদের নিজ নিজ বাড়িতে হোম কোয়ারেন্টিনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দীপায়ন দাস শুভ জানান, উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের মাধ্যমে আজকে আক্রান্তদের বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে। তিনি আক্রান্তদের সুস্থতা কামনা করেন। এছাড়া কোভিড-১৯ মোকাবেলায় কচুয়াবাসীকে বিনা প্রয়োজনে ঘর থেকে বাহির না হওয়ার জন্য আহবান জানান।

উল্লেখ্য, পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের মানিক মজুমদার সোহাগ পার্শ্ববর্তী হাজিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নমুনা দিলে গত ২৮ মে করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে। করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর সোহাগ মজুমদার নিজ বাড়িতে হোম কোয়ারেন্টিনে থেকে চিকিৎসা নেন। গত ৯ জুন (মঙ্গলবার) কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দ্বিতীয় ধাপে নমুনা দিলে শুক্রবার আবার তার করোনা পজিটিভ আসে। পূর্বে তার নাম এন্টি হওয়ায় নতুন করে করোনা শনাক্তের আজ শুক্রবারের তালিকায় নতুন করে তার নাম এন্টি হয়নি।

পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ড (মাছিমপুর) গ্রামের জাহাঙ্গীর আলম মল্লিক সে এনজিও সাজেদা ফাউন্ডেশন উপজেলা শাখার ম্যানেজার। বর্তমানে সে কাঁচপুরে অবস্থিত সাজেদা ফাউন্ডেশন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সুত্র মতে, এ পর্যন্ত উপজেলায় করোনা সন্দেহে ১৯৯ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। তার মধ্যে ১৮৪ জনের রিপোর্ট এসেছে। এর মধ্যে ৪ জনের মৃত্যু সহ ২২ জন পজিটিভ, ১৬২ জন নেগেটিভ। বাকি ১৫ জনের রিপোর্ট আসার অপেক্ষামান।