ড.মহীউদ্দিন খান আলমগীর এম পি চাইলে কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ তৃণমূ্লের জন্য চাঁদপুর সম্মেলন উপলক্ষে খাবার ব্যাবস্থার আয়োজন ও বিতরনের দায়িত্ব নিতে চান বলে জানান লন্ডন প্রবাসী ও উপজেলা কাউন্সিলে সাংগঠনিক সম্পাদক পদপ্রার্থী এডভোকেট শাখাওয়াত হোসেন টিটো

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগকে সাংগঠনিকভাবে গতিশীল করার লক্ষে বিভাগীয় পর্যায়ে তৃণমূল কর্মীদের নিয়ে প্রতিনিধি সভা এবং বর্ধিত সভা করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। সে আলোকে আগামী ২ অক্টোবর চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের তৃণমূল প্রতিনিধি সভা এবং ৩ অক্টোবর জেলা আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হবে।

সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন, চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল।

জানা গেছে, চাঁদপুর স্টেডিয়ামে জেলা আওয়ামীলীগের আয়োজিত তৃনমুল প্রতিনিধি সভা ও বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ, এমপি।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, চাঁদপুর-৩ (সদর-হাইমচর) আসনের সংসদ সদস্য শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য ও চাঁদপুর-১ (কচুয়া) আসনের সংসদ সদস্য ড. মহিউদ্দিন খান আলমগীর, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম, চাঁদপুর-৫ (হাজিগঞ্জ-শাহরাস্তি) আসনের সংসদ সদস্য মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম।

প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকবেন, সাবেক ছাত্রনেতা বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি।

বিশেষ বক্তার বক্তব্য রাখবেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক, সাবেক ছাত্রনেতা ও বার কাউন্সিল সদস্য অ্যাডভোকেট নজিবুল্লাহ হিরু, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ, চাঁদপুর-৪ (ফরিদগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য মুহম্মদ শফিকুর রহমান, চাঁদপুর-২ (মতলব উত্তর-মতলব দক্ষিণ) আসনের সংসদ সদস্য এডভোকেট নুরুল আমিন রুহুল ও চাঁদপুর-৪ (ফরিদগঞ্জ) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ড. মোহাম্মদ শামছুল হক ভূঁইয়া।

সভাপতিত্ব করবেন, চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নাছির উদ্দিন আহমেদ। সঞ্চালকের দায়িত্ব পালন করবেন, চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল।এদিকে, বর্ধিত সভা সফল বাস্তবায়নের লক্ষে সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের কার্যালয়ে প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ড.মহীউদ্দিন খান আলমগীর এম পি চাইলে কচুয়া উপজেলা তৃণমূ্লের জন্য চাঁদপুর সম্মেলন উপলক্ষে খাবার ব্যাবস্থার আয়োজন ও বিতরনের দায়িত্ব নিতে চান বলে জানান লন্ডন প্রবাসী এডভোকেট শাখাওয়াত হোসেন টিটো । তিনি বলেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক টিমের সফর আগামী ২ অক্টোবর চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের তৃণমূল প্রতিনিধি সভা ও ৩ অক্টোবর জেলা আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভা সফল হউক, তিনি চাঁদপুর-১ কচুয়া বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে একক প্রার্থী হতে চান, ইতিমধ্যে তিনি এলাকায় জোড় প্রচার ও প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন।
কে এই এডভোকেট শাখাওয়াত হোসেন টিটো ? ২০০৪ সালের ২১শে আগস্ট বিভীষিকাময় গ্রেনেড হামলার আওয়ামীলীগ অফিসের পূর্ব পাশে খুব কাছে থেকেই বেঁচে যাওয়া, ২০০১-২০০২ কুমিল্লায় সদর বীর মুক্তিযোদ্ধা (এম পি )আ ক ম বাহারের সাথে কান্দিরপাড় আওয়ামীলীগের মিছিলে বি এন পি জামাতের অতর্কিত হামলায় গুলির হাত থেকে প্রানে বেঁচে যাওয়া এবং ২০০৬ সালে তেজগাঁও থেকে পল্টন কমিশনার শেখ মজিবুর রহমানের নেতৃত্বে মিছিল নিয়ে মগবাজার মোড়ে পুলিশের গুলির হাত থেকে বেঁচে যাওয়া এবং সর্বশেষ চাঁদপুর কচুয়া কাদলা নিজ গ্রামে ২০০৬ সালে বি এন পি জামাত জোট সরকারের বিরুদ্ধে স্মরণকালের সেরা আন্দোলন ও মিছিলে অতর্কিত হামলায় প্রানে বেঁচে যাওয়া ব্যাক্তিটিই আজকের আলোচিত এডভোকেট শাখাওয়াত হোসেন টিটো ভাই !
চাঁদপুর-১ কচুয়া উপজেলায় হঠাৎ করেই কচুয়ার বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায় ও চায়ের দোকানে তুমুল আলোচনা চলছে এক ব্যাক্তি কে নিয়ে সবার মুখে মুখে একটাই প্রশ্ন ‘কে এই সময়ের আলোচিত ব্যাক্তি ? যার সরকারের উন্নয়নের নান্দনিক পোষ্টারে ব্যানারে ছেয়ে গেছে সমগ্র কচুয়া উপজেলায়। যিনি কচুয়া উপজেলায় ড.মহীউদ্দীন খাঁন আলমগীর এমপি মহোদয়ের সুযোগ্য উত্তরসূরী হতে চলেছেন
আলোচনা যখন উপজেলায় তুঙ্গে, তখন চলুন জেনে নেয়া যাক কে এই এডভোকেট শাখাওয়াত হোসেন টিটো ? এডভোকেট শাখাওয়াত হোসেন টিটো চাঁদপুর জেলার কচুয়া উপজেলার ৮ নং কাদলা ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী কাদলা গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম ও বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন।
তার বাবার নাম বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব গাজী সোলায়মান সাবেক অবঃ বি আর ডি বি কর্মকর্তা এবং মায়ের নাম নাজমা আক্তার শেফালী সাবেক অবঃ মাঠ কর্মকর্তা কচুয়া সরকারি হাসপাতাল ।তিনি ঐতিহ্যবাহী কচুয়া উপজেলার স্বনামধন্য বিদ্যাপীঠ হযরত শাহ নেয়ামত শাহ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক ও কুমিল্লা কমার্স কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় কারিগরি বোর্ড সম্মিলিত মেধাতালিকায় ৫ম স্থান অধিকার করেন। অতঃপর বোর্ড মেধাতালিকায় স্থান পাওয়ায় তৎকালীন সময়ে বে-সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্ধেক স্কলারশিপ নিয়ে আইন বিষয়ে প্রথম শ্রেনীতে অনার্স ও মাস্টার্স ডিগ্রী অর্জন করেন।
তিনি এবং তার একমাত্র সধর্মিণী ২০০৫ সাল থেকেই ঢাকা বার আইনজীবী সমিতিতে সিনিয়ারের সাথে বিজ্ঞ আইন পেশায় নিয়োজিত থেকে অত্যান্ত কঠোর অধ্যবসায় নিয়ে গড়ে তুলেন নিজের আইনি সহায়তা চেম্বার এডভোকেট শাখাওয়াত হোসেন এন্ড এসোসিয়েটেস যা বর্তমানে দেশে-বিদেশে সমাদৃত। তাদের রয়েছে ল’ক্লিনিক নামে ফ্রি আইনি সহায়তা সেল।
কাদলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাইমারী, দরবেশ গঞ্জ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ষষ্ঠ শ্রেনী এবং রঘুনাথপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৭ম অতঃপর অষ্টম শ্রেনীতে ভর্তি হয়ে ঐতিহ্যবাহী কচুয়া উপজেলার স্বনামধন্য বিদ্যাপীঠ হযরত শাহ নেয়ামত শাহ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক পড়ালেখা অবস্থায় বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে স্কুল জীবন থেকেই ছাত্র রাজনীতিতে জড়িয়ে যান তিনি, তৎকালীন ৯০ দশকের আওয়ামীলীগ বিরোধীদলের প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে একজন কর্মী হয়ে যোগ দেন তিনি।
হযরত শাহ নেয়ামত শাহ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক পড়ালেখা অবস্থায় লেখাপড়ার পাশাপাশি অলরাউন্ডার খেলোয়াড় হিসেবে রয়েছে বিদ্যালয় এবং উপজেলা পর্যায়ে বেশ সুনাম, তিনি একাধারে ফুটবলের রক্ষনভাগে ছিলেন বেশ পারদর্শী, বিদ্যালয় থেকে স্থানীয় এবং উপজেলায় বেশ কয়েকবার খেলেন এবং বিদ্যালয়ের জন্য ট্রপি ও সুনাম কুঁড়িয়ে আনেন , ফুটবলের পাশাপাশি তিনি স্কুল এবং উপজেলা পর্যায়ে ছিলেন সেরা দৌড়বিদ, বেশ কয়েকবার উপজেলা এবং স্ক্লে প্রথম ও দ্বিতীয় হওয়ার গৌরব অর্জন করেন। লং জাম্প এবং হাই জাম্পেও ছিলেন সমান পারদর্শী ৯২-৯৫ টানা চ্যাম্পিয়ান হওয়ার গৌরব অক্ষুন্ন রাখেন। হযরত শাহ নেয়ামত শাহ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক পড়ালেখা অবস্থায় সর্বশেষ আন্তঃসাঁতার প্রতিযোগিতায় তিনি প্রথম স্থান অক্ষুন্ন রাখেন , বলা ছলে খেলাদুলা এবং পড়াশোনায় সমান তালে পারদর্শী ছিলেন, তাই তিনি রাজনীতিতেও মানুষের সেবা করে তার চ্যাম্পিয়ান হওয়ার গৌরব অক্ষুন্ন রাখতে চান সময়ের আলোচিত এডভোকেট শাখাওয়াত হোসেন টিটো ভাই।
তিনি উচ্চ মাধ্যমিক পড়াশোনা কালীন সময়ে কুমিল্লার সদর আসনে স্থানীয় এম পি হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার ও শফিক শিকদারের রাজনীতিতে অনুপ্রানিত হয়ে কলেজ শাখায় ছাত্রলীগের কর্মী হিসেবে সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি তৎকালীন ২০০১ জাতীয় নির্বাচন কুমিল্লা পৌরসভা নির্বাচনে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজিয়েট স্কুলে এজেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন । তিনি পড়ালেখার পাশাপাশি কুমিল্লা টাউন হল সুপার মার্কেটে নাজমা ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল নামে ব্যাবসা শুরু করেন, অতঃপর সরকারিভাবে কম্পিউটারের উপর ডিপ্লোমা করে আধুনিক কম্পিউটার শিক্ষা প্রশিক্ষন কেন্দ্রে ট্রেনিং শেষে শিক্ষকতা শুরু করেন। উচ্চ মাধ্যমিক মেধা তালিকায় স্থান পাওয়ায় তৎকালীন সময়ে হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার এম পির পরামর্শে ব্যাবসা ছেড়ে সাবেক আইনমন্ত্রী আব্দুল মতিন খসরুর সরাসরি সুপারিশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন চেয়ারম্যান এ বি এম মফিজুল ইসলাম পাটোয়ারী প্রতিষ্ঠিত প্রথম বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ব্যায়বহুল আইন বিষয়ে স্কলারশিপ (অর্ধেক বেতনে) নিয়ে প্রথম শ্রেণীতে অনার্স (এল এল বি) সহ মাস্টার্স (এল এল এম) ডিগ্রী সম্পন্ন করেন।
তিনি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন সময় তেজগাঁও এবং বনানী ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন এবং তৎকালীন আওয়ামীলীগ বিরোধী দলে থাকা অবস্থায় প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে তেজগাঁও নাখালপাড়া কমিশনার মজিবুর রহমানের নেতৃত্বে নাখালপাড়া থেকে পল্টন ময়দানে সকল বাধা বিপত্তি অতিক্রম করে পিকেটিং ও মিছিলে সক্রীয় ভাবে অংশগ্রহন করেন
দীর্ঘ ২১ বছর পর বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসলেও আওয়ামীলীগকে স্ব-মুলে নিচ্ছিন্ন করার ষড়যন্ত্রে দেশে ১/১১র উদ্ভব হয়, ঠিক সে সময়েই অনেক নেতা কর্মী দেশ থেকে পালিয়ে বিদেশে এবং পাশের দেশ ভারতে পাড়ি জমান এবং আওয়ামীলীগ ছেড়ে বি এন পি-জামাতে যোগদান করে। কিন্তু সে সময়ে ছাত্র সংগঠনের অভিজ্ঞতা থেকে ঢাকার রাজপথে মিছিল মিটিং আন্দোলন সংগ্রামে জড়িয়ে জান তিনি। ঢাকা বার আইনজীবী সমিতির সদস্য হয়ে একাধারে ঢাকা চাঁদপুর কুমিল্লা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া আদালতে পেশাদারিত্ব বজায় রেখে অত্যান্ত সুনামের সাথেই কাজ করেন। তিনি আওয়ামী যুব আইনজীবী সংঘঠনের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য, আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ সদস্য এবং বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ যুক্তরাজ্য শাখার প্রতিষ্ঠাতা সদস্য সচিব হিসেবে ২০১২ সাল থেকে দায়িত্ব পালন করে আসছে
১/১১ এর বিভীষিকাময় দুঃসময়ে ডঃ মহীউদ্দীন খাঁন আলমগীর এমপি ও জননেত্রী শেখ হাসিনার মুক্তি নিশ্চিত করতে প্রায় দুই কোটি টাকা মুল্যের আইনি সহায়তা সহ উল্লেখযোগ্য অবদান রাখেন এই এডভোকেট শাখাওয়াত হোসেন টিটো । ১/১১ ভুমিকায় মুল্যায়ন হিসেবে বঙ্গবন্ধু কন্যার সরকার বাংলাদেশ প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনাল ঢাকায় একজন সরকারি আইনজীবী হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন, যা এখনো বর্তমান। দীর্ঘদিন সরকারের পক্ষে আইনি সেবা প্রদান করে পরবর্তীতে আইন বিষয়ে সর্বোচ্চ ডিগ্রি বার- এট-ল অর্জনের অভিপ্রায়ে পাড়ি জমান যুক্তরাজ্যে। সেখানে বার-এট-ল এর পড়াশোনার পাশাপাশি যুক্তরাজ্যে ইমিগ্রেশান আইনজীবী হিসেবে তালিকাভুক্তি হয়ে ২০১৯ সাল থেকে আইনি সেবা প্রদান করে আসছেন দেশে-বিদেশে রয়েছে অনেক স্বনামধন্য অভিভাসী ক্লায়েন্ট। বিলেতে অবস্থানরত বাঙ্গালী ছাত্রছাত্রীদের বিনামূল্যে কনসালটেন্সি সহ বাংলাদেশের বিভিন্ন ধরনের আইনি সহায়তা অনলাইনে পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন। বিশেষত লন্ডনে চাঁদপুর এবং দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আগত নতুন ছাত্রছাত্রীদের জন্য তিনি ছিলেন পথপ্রদর্শক।
চাঁদপুরবাসী লন্ডন ও যুক্তরাজ্যে এসোসিয়েশনের শূন্যতা থাকায় ২০১০ সালের ডিসেম্বর মাসে সর্ব প্রথম প্রতিষ্ঠা করেন ‘’যুক্তরাজ্যে প্রবাসী চাঁদপুর ‘’ নামে বৃহৎ চাঁদপুরের সংগঠন এবং শুরুতেই সদস্যদের মাধ্যমে নির্বাচিত হয়ে ২০১২ সাল পর্যন্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। তার ক্ষুদ্র এবং একান্ত প্রচেষ্টায় চাঁদপুর বাসীর মহা মিলন মেলা করতে সমর্থ হন।
লন্ডনে তিনি পাশাপাশি গড়ে তুলেছেন বেসরকারী নিরাপত্তা সংস্থা। দলের দুর্দিনে তার অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা পরপর দুইবার মুল্যায়ন করেছেন জনাব এডভোকেট শাখাওয়াত হোসেন টিটো ভাইকে- সরকারী আইনজীবী ,বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ এর ফাউন্ডার সদস্য সচিব,যুক্তরাজ্য শাখার গুরুত্বপূর্ণ পদে আসীন করেন। একারনেই ভবিষ্যৎ কচুয়ার কর্ণধার, জননেতা ডঃ মহীউদ্দীন খাঁন আলমগীর এমপির উত্তরসূরী হিসেবে কেন্দ্র থেকে তৃনমূল সর্বত্রই এডভোকেট শাখাওয়াত হোসেন টিটু সবার আলোচনার বিষয়বস্তুতে পরিনত হয়েছেন।
চাঁদপুর-১ কচুয়া থেকে নৌকা প্রতীকে একক প্রার্থী, এবং উপজেলা আওয়ামী লীগে মহান মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্মের কন্ঠ হিসেবে কাজ করতে ভলান্টিয়ার ফরম লিংক- https://bit.ly/3D0SBYY
প্রচারেঃ ১/১১ বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ন জননেত্রী শেখা হাসিনা-ড.মহীউদ্দিন খান আলমগীর মুক্তি পরিষদ ও কচুয়া উপজেলার সর্বস্তরের জনগণ ।
বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কচুয়া, কুমিল্লা ,ঢাকার ক্ষুদ্র একজন কর্মী
প্রতিষ্ঠাতা : ১/১১ বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ন জননেত্রী শেখা হাসিনা ও ড.মহীউদ্দিন খান আলমগীর মুক্তি পরিষদ
প্রতিষ্ঠাতা:কাদলা সোলায়মানিয়া দ্বীনিয়া মাদ্রাসা কচুয়া l
সাবেক সরকারি আইনজীবী : প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনাল ঢাকা
এস আর এ রেজিস্টারড : ইমিগ্রেশান কন্সালটেন্ট লন্ডন
প্রতিষ্ঠাতা : এডভোকেট শাখাওয়াত & এসোসিয়েটেস বাংলাদেশ-লন্ডন
প্রতিষ্ঠাতা : ল’ক্লিনিক লন্ডন
প্রতিষ্ঠাতা : কচুয়ারডাক কচুয়া
মিডিয়া : চ্যানেল আই, দেশ টিভি, লন্ডন বাংলা, আইন বারতা, নওরোজ ঢাকা
প্রতিষ্ঠাতা: ড্রাগন সিকিউরিটি লন্ডন
প্রতিষ্ঠাতা: বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ যুক্তরাজ্য শাখা
প্রতিষ্ঠাতা: যুক্তরাজ্য যুক্তরাজ্যে প্রবাসী চাঁদপুর লন্ডন
প্রতিষ্ঠাতা : গাজী এগ্রোস ফারমস & ফিশারীজ কাদলা কচুয়া
প্রতিষ্ঠাতা :বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব গাজী সোলায়মান-নাজমা ফাউন্ডেশন কাদলা কচুয়া
(সুলতান আহমেদ মানিক)
প্রচারেঃ ১/১১ বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ন জননেত্রী শেখা হাসিনা ও ড.মহীউদ্দিন খান আলমগীর মুক্তি পরিষদ