মাননীয় সাংসদ চাঁদপুর-১ কচুয়া আপনার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষন করছি

কচুয়ার ডাকঃ মাননীয় সাংসদ চাঁদপুর-১ কচুয়া আপনার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষন করছি কচুয়া হজরত শাহ নেয়ামত শাহ উচ্চ্ বিদ্যালয়ের জরাজীর্ন টিনশেড থেকে একাডেমিক ভবন নির্মাণের জন্য একখানা বরাদ্ধ দেয়া হউক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শুনলে হয়তো আজ লজ্জা পেতেন। মরহুম এডভোকেট আব্দুল আউয়াল খন্দকার সাবেক এম এল সদস্য বৃহত্তর কুমিল্লা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাধক ,চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি ও কর্মসংস্থানের ব্যাংকের প্রতিষ্ঠত চেয়ারম্যান ও বঙ্গবন্ধুর এক কালের সহচর ছিলেন।তারই প্রতিষ্ঠিত দুটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বঙ্গবন্ধু ডিগ্রী কলেজ কচুয়া ও হজরত শাহ নেয়ামত শাহ উচ্চ্ বিদ্যালয়|কলেজে ব্যাপক উন্নয়ন হলেও স্কুলে আজ মেগ বৃষ্টি হলে পানি পরে তা দুঃখজনক নয় কি?
আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ,উন্নয়নশীল দেশ এখন বাংলাদেশ। অথচ কচুয়ার শিক্ষা ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনে দিয়েছে যে স্কুলটি, যে স্কুল থেকে অনেক মেধাবী ছাত্ররা শিক্ষা গ্রহন করে আজ রাষ্ট্রের ও সমাজের বিভিন্ন পর্যায়ে রয়েছে সেই হযরত শাহনেয়ামত শাহ উচ্চ বিদ্যালয়টির মূল একাডেমিক ঘরটির আজও কোন পরিবর্তন হয় নাই। দেখলে মনে হয় এটি কোন অজোপাড়া গায়ের স্কুল। কিন্তু কেন?? স্কুলের সভাপতি হলেন কচুয়া পৌরসভার মেয়র ও যুবলীগের সভাপতি জনাব নাজমুল আলম স্বপন, পরিচালনা কমিটির অনেকেই সরকারি দলের লোক বলে পরিচিত। স্কুলের ভিতরে একটি প্রাইমারি ভবনের নাম রয়েছে কচুয়ার সাংসদ ডক্টর মহিউদ্দিনখান আলমগীরের স্ত্রী সিতারা আলমগীরের নাম। আওয়ামীলীগের সকল রাজনৈতিক মিছিল মিটিংয়ের প্রাণকেন্দ্র পরিণত হলেও , এই স্কুলটিতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও তার জীবনী নিয়েও সবসময় ব্যাপক আলোচনা হয় এই স্কুলটিতে। আজ প্রশ্নবিদ্ধ কচুয়ার উন্নয়ন?হাল আমলে সকল স্কুল কলেজের উন্নয়ন হলেও উন্নয়নের ছুঁয়া লাগে নি এই (হযরত শাহনেয়ামত শাহ) আওলিয়ার নামের স্কুলটির। স্কুলটির নতুন একাডেমিক ভবন নির্মাণে মাননীয় সংসদ মহোদয়ের মাধ্যমে যথাযথ কতৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করছি|ধন্যবাদান্তে প্রাক্তন ছাত্র/ছাত্রীবৃন্দ, হযরত শাহনেয়ামত শাহ উচ্চ বিদ্যালয়, কচুয়া চাঁদপুর|

গত ৬/৪/২০১৮ইং তারিখে বৃষ্টির পর ক্লাস চলাকালীন সময়ে উঠানো ছবিগুলু!! জাহিদুল হক সাবেক ছাত্র ব্যাচ ৯৬। ইমেইল:KACHUARDAK@GMAIL.COM

ধন্যবাদান্তে প্রাক্তন ছাত্র/ছাত্রীবৃন্দ।

767 total views, 2 views today

মন্তব্য করুন।

Please enter your comment!
Please enter your name here