মিলনের পক্ষেই উপজেলা বিএনপির প্রায় নেতাকর্মীরা

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণ এর ফলে দীর্ঘ ১০বছর পর কচুয়া রাজনীতির মেরু পরিবর্তনের দিকে।কচুয়া উপজেলা বিএনপি আবারও প্রফুল্ল হয়ে ওঠেছে।তবে এবার দেখা যাচ্ছে দলীয় কোন্দল।এই উপজেলা থেকে এবার জাতীয় নির্বাচনে ধানের শীষ নিয়ে নির্বাচন করতে চাচ্ছে বেশ কিছু স্থানীয় নেতাকর্মী ও প্রবাসী বিএনপি নেতা।গত ২৮তারিখ বিএনপি কতৃক আনুষ্ঠানিকভাবে ৩জন নেতাকে প্রাথমিকভাবে মনোনয়ন দেয়। নির্বাচনের কৌশলগত কারনে একাধিক প্রার্থী দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বর্তমানে প্রাথমিকভাবে মনোনয়নকৃতরা হলেন সাবেক সাংসদ ও সাবেক শিক্ষাপ্রতিমন্ত্রী ড. আ ন ম এহসানুল হক মিলন, তার স্ত্রী ও সাবেক মহিলা দলের সহসভাপতি নাজমুন্নাহার বেবী এবং মালেশিয়া বিএনপির নেতা মোশাররফ হোসাইন।

স্থানীয় নেতাকর্মীরা কাকে দলে চায় এমন প্রশ্নে সাবেক এমপি মিলনের পক্ষেই সাড়া পাওয়া যায়।স্থানীয় কিছু সংখ্যক নেতা কর্মী ব্যাতিত সবাই এই সাবেক এমপিকে ধানের শীষ প্রতিকে নির্বাচনের মাঠে দেখতে চায়।এ নিয়ে জানা যায় যে, নেতাকর্মীরা কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে তাদের অবস্থানের কথা জানায়।মিলনকে নমিনেশন দিলে তাদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহন এর কথা তারা জানায়।অন্যথায় এই আসন থেকে ধানের শীষ প্রতীক হারলে এর দায় স্থানীয় বিএনপি নেতাকর্মীরা নিবে না। তাদের দাবি এই আসনের জন্য যোগ্য ড.মিলন ই। তাছাড়া এখনো ড.মিলনের বেশ জনপ্রিয়তা রয়েছে।শিক্ষাক্ষেত্রে তার অবদানের জন্য জাতী তাকে কখনো ভুলবে না এমনদাবিও নেতাকর্মীরা করে আসছে।গনমানুষের নেতা হিসেবেই মিলনকে তারা আবারও ধানের শীষ প্রতিকে দেখতে চাচ্ছে ।তাছাড়া চাঁদপুরে আদালতে মিলনের মামলার শুনানি চলাকালীন প্রচুর সংখ্যক নেতাকর্মীর উপস্থিতি লক্ষ করা যায়।

72 total views, 1 views today