ডঃ মহীউদ্দিন খান আলমগীর এমপির মুক্তি ও ১/১১ তে নব নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান শাহজাহান শিশিরের ভুমিকা

কচুয়াতে বিশেষ করে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের আগে ও পরে যারা ডঃখানের অতি ভক্তি/খান প্রীতি বলে প্রচার করছেন-তাদের উদ্দেশ্য দায়িত্ববোধ থেকেই কচুয়ার জনগণ ও কচুয়ারডাক পাঠকদের জন্য লিখার চেষ্টা মাত্র।

১/১১ রাজনীতিবিদদের জন্য ছিল আশীর্বাদ কিংবা অভিশাপ ও বটে, এখনো বংগবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা অনেক কে মূল্যায়ন করেছেন কিংবা করে যাচ্ছেন আর সেজন্যই আশীর্বাদ। আপনি জানেন কি? কচুয়ার জননেতা ডঃ মহীউদ্দিন খান আলমগীর এমপির ১/১১ সকল সাক্ষীদের ভয় ভীতি উপেক্ষা করে আদালতে সাক্ষীদের নিয়ে হাজির হওয়া ব্যক্তিটি কে? বিশেষ করে মুনতাসীর মামুন ও ডঃ আবুল বারাকাতকে নিয়মিত তখনকার সেনাবাহিনীর মেজর দিয়ে হুমকি দেয়া হত,যেন আদালতে গিয়ে ডঃ মহীউদ্দিন খান আলমগীর এমপির পক্ষে সাক্ষ্য প্রদান না করা হয়! ইঞ্জিনিয়ার শহীদুল্লাহ যিনি ডঃ খানের বনানী বাড়িটি নির্মান করছেন তিনি ১/১১ এক মেজরকে ধমক দিয়ে বলেছিলেন পৃথিবীর কোন দেয়াল সৃষ্টি হয়নি যে আমাকে ডঃ মহীউদ্দিন খান আলমগীর এমপির পক্ষে সাক্ষ্য প্রদানে বাধা প্রদান করবে। এইভাবে কচুয়ার প্রয়াত মীর ইকবাল থেকে শুরু করে বাংলাদেশ-আমেরিকান চেম্বারের সভাপতি পর্যন্ত সাফাই সাক্ষ্য প্রদান করেন কচুয়ার জননেতা ডঃ মহিউদ্দিন খান আলমগীর এমপির পক্ষে,এই সাক্ষ্যগূলো পরবর্তীতে ডঃ মহিউদ্দিন খান আলমগীর এমপির মুক্তি,মামলা থেকে খালাস ও নির্বাচনে যোগ্য হওয়ার পথকে সুগম করে।

১/১১তে ডঃ মহীউদ্দিন খান আলমগীর এমপির পক্ষে সবচেয়ে বেশি সাক্ষী নিয়ে হাজির হয়েছিলেন ততকালীন বিশেষ আদালতে আজকের কচুয়ার দুই দুইবারের নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান শাহজাহান শিশির,আমি ব্যক্তিগতভাবে শাহজাহান শিশিরের তত্কালীন সাহসী উদ্যোগের জন্য আগেও লিখেছিলাম। ডঃ মহীউদ্দিন খান আলমগীর এমপির আশীর্বাদ রয়েছে শাহজাহান শিশিরের উপর অন্য কারো নন, আর আশীর্বাদ নিয়েই নিজ যোগ্যতায় এগিয়ে যাচ্ছেন এবং এগিয়ে যাবেন।

আমরা যারা তখন নিঃস্বার্থ ভাবে কচুয়ার জননেতার জন্য জীবনের সোনালী সময়ে লড়েছিলাম কোন হালুয়া রুটির জন্য নয়! নেতার প্রতি কর্মীর ভালবাসা ও কচুয়ার সন্তান হিসেবে ভ্রাতৃত্বের দায়িত্ববোধ থেকেই।
আজকে যারা কচুয়াতে বড় বড় কথা বলেন ডঃ মহীউদ্দিন খান আলমগীরকে দিনে রাতে সকালে বিকালে হাজার বার বিক্রী করে চলেছেন, তাদের কাছে আমার প্রশ্ন?ডঃ খানের অবর্তমানে কাকে বিক্রী করে খাবেন, এসব অতি ভক্তি চোরের লক্ষন নয় কি? আমারা তো শাহজাহান শিশিরকে নির্বাচনের আগে ও পরে কচুয়ার জননেতাকে সকাল বিকাল বিক্রী করতে দেখিনি!
“লন্ডনে আমি ডঃ মহীউদ্দিন খান আলমগীর এমপিকে একবার বলেছিলাম, একসময় হয়তো আপনার জুতা জামা বিক্রী করে খেতেও মানুষ দিদাবোধ করবে না সে দিন বেশি দূরে নয় তিনি মুচকি হাসলেন” আমরা কত নীচে নেমে যেতে পারি একজন এমপির বর্তমানে,অবর্তমানে,সামনে,পেছনে নিজেদের জন্য হালুয়া রুটির যোগান দিতে কত রকম ভাবেই না আমরা বিক্রি করে দিনাতিপাত করছি,আমাদের কি লজ্জা শরম বলতে কিছু নেই।
আমরা যারা আল্লাহপাকের উপর পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস রেখে রিযিকের জন্য প্রার্থনা করে দিনাতিপাত করি, আমাদের রুটি রোজগার করার জন্য তো কারো ধারস্ত কিংবা অন্তত নাম বিক্রি করে চলতে হয় না!আলহামদুলিল্লাহ।

ডঃ মহীউদ্দিন খান আলমগীর এমপির দুর্দিনে সেদিন তো আপনাদের আমরা কোন ভুমিকা নিতে দেখিনি, না হয়েছে কচুয়াতে আওয়ামীলীগের নেতৃত্বে একটি মুক্তির মিছিল না হয়েছে ঢাকায় একটি কচুয়ার আওয়ামীলীগের মুক্তি আন্দলন।
“যা হয়েছে আমাদের মতো খেটে খাওয়াদের রুটি রোজগারের পয়সা আর আন্দলন সংগ্রাম করেই, অবশ্য আজকের ফয়েজ আহমদ স্বপন ১/১১ তে ডঃ মহিউদ্দিন আলমগীর এমপির মুক্তির জন্য অর্থ ব্যয় করছেন ”

ডঃ মহীউদ্দীন খান আলমগীর এমপির অসমাপ্ত কাজ সম্পাদন করতে শুধু উপজেলাতে নয় আগামীতে কচুয়ার জনতার কন্ঠ হিসেবে সংসদে দেখতে চায় কচুয়ার তৃনমুল জনগণের প্রান ভোমরা নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান শাহজাহান শিশিরকে! শাহজাহান শিশির ডঃ মহীউদ্দিন খান আলমগীর এমপির দুর্দিনে যেমন Vanguard হিসেবে ছিলেন সু-দিনেও Vanguard হিসেবেই থাকবেন,কারো রক্ত চক্ষুকে ভয় পেয়ে অন্তত নয়। আর যে সকল পাপিষ্ঠরা ডঃ মহীউদ্দিন খান আলমগীর এমপিকে সকাল বিকাল বিক্রী করে ফায়দা লুটে ফয়েজ আহমদ স্বপনের কাছ থেকে নির্বাচনে জিতিয়ে দিবেন বলে উতকোচ গ্রহন করেছেন কাল বিলম্ব না করে ডঃ মহীউদ্দিন খান আলমগীর এমপি দেশে ফিরে আসার আগেই ফয়েজ আহমদ স্বপনের টাকা ফেরত দিন, অন্যথায় আগামী দিনে কচুয়ায় সেই সকল সুবিধাভোগীদের মুখ ও মুখোশ উমমোচন করা হবে!

ডঃ মহীউদ্দিন খান আলমগীর এমপির আগে ও পরে শাহজাহান শিশির ছিলেন, শাহজাহান শিশির থাকবেন।

শুধুমাত্র পাপীষ্ঠ আর রাজনৈতিক পতীতারাই ইতিহাস থেকে শিক্ষা নিয়ে আস্থাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হবেন। জয়বাংলা।

লেখক এডভোকেট শাখাওয়াত হোসেন টিটো,আইনজীবী ১/১১ ডঃ মহীউদ্দিন খান আলমগীর এমপি ও প্রধান সম্পাদক কচুয়ারডাক, যুক্তরাজ্য প্রবাসী।

278 total views, 1 views today