কচুয়ার দুই মেরুর চরম বৈরী ভাবাপন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা ড. খান ও ড. মিলনের মধ্যে বরফ গলেছে অবশেষে

সুজন পোদ্দার, কচুয়া ॥
সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী ড. এহসানুল হক মিলনের শ^শুর ইউনুছ খানের লাশ মঙ্গলবার সকালে ঢাকা থেকে কচুয়ার পালগিরীতে নিয়ে আসার পথে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার দাউদকান্দির এক্সপ্রিড সিএনজি স্টেশন থেকে জ¦ালানী নেয়ার জন্য বিরতি গ্রহণ করে। একই সময় আচমকা সেখানে দেখা মিলে দুই মেরুর আওয়ামীলীগ-বিএনপির চির প্রতিদ্বন্ধি, ভোটের মাঠেও একই রকম প্রতিদ্বন্ধি ব্যক্তিত্ব সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী ড. আ.ন.ম. এহসানুল হক মিলন ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর। প্রায় এক যুগধরে মুখোমুখি দেখা যায়নি তাদেরকে। চলতি পথে হঠাৎ দেখা হলো তাদের। চমকে এগিয়ে এলেন পরস্পরের কাছে। কুশল বিনিময় শেষে আবেগ প্রবণতায় ডুবে থাকলেন কিছুক্ষণ দুইজন। ড. খান রাজনৈতিক বিভিন্ন কর্মসূচিতে যোগদিতে ঢাকা থেকে কচুয়ায় আসছিলেন। এ অবস্থায় আকস্মিকভাবে দেখা হয়ে যায় দুই চির প্রতিদ্বন্ধির। মুহুর্তের মধ্যেই তারা উভয় বৈরীতা ভুলে গিয়ে এক হৃদ্যতাপূর্ণ পরিবেশে পরস্পর আলিঙ্গন শেষে চা চক্রে মিলিত হন। দুই নেতার মধ্যেকার এই মহামিলন কচুয়ার আওয়ামীলীগ ও বিএনপি’র নেতাকর্মীদের মধ্যে একটি বিরল মুহূর্ত বলে ভাস্বর হয়ে থাকবে। কেননা দুই রাজনীতিকের এই হঠাৎ সাক্ষাতের বিষয়টি মানুষের ভেতরও সৃষ্টি করেছে কৌতুহল। কেননা, স্থানীয় রাজনীতিতে নয়, জাতীয় রাজনীতিতে তারা গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব।
অতপর, বাদ জোহর কচুয়ার পালগিরীর খলিলুর রহমানের মাজার প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত জানাযায় দুই নেতাই অংশ গ্রহণ করেন। দুই নেতার অংশ গ্রহণের কারনে বিএনপি ও আওয়ামীলীগ উভয় দলের উপজেলা পর্যায়ের শীর্ষ স্থানীয় নেতৃবৃন্দসহ অসংখ্যক কর্মীরা অংশ নেয়। জানাযা অনুষ্ঠানে মহামিলন ঘটে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি’র নেতাকর্মীদের মাঝে। এসময় আওয়ামীলীগ ও বিএনপির নেতাকর্মীরা পরস্পরের মধ্যে আলিঙ্গন করাসহ কুশল বিনিময়ে মিলিত হন।

105 total views, 2 views today