কচুয়া কাদলা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ নির্বাচিত!


কাদলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম প্রাপ্ত ভোট ১১০ নিকটতম মোবারক ৯৮,ও সাধারণ সম্পাদক আবুল হাসনাত ফরহাদ ৮২ নিকটতম জহির ৮১, হাড্ডাহাড্ডি ভোটের ব্যাবধানে নির্বাচিত হন,ধন্যবাদ সকল কাউন্সিলর ও উদিয়মানদের!

অভিনন্দন ডঃমহীউদ্দীন খান আলমগীর ও কচুয়ার ছাত্র রাজনীতির পুরধা জনাব রফিকুল ইসলাম লালু কে, আজকে আবারো প্রামানিত হলো বি এন পি-জামাত ও দলছুটদের স্থান কচুয়া আওয়ামীলীগে হতে পারে না, কচুয়ার প্রতিটি নির্বাচনে আপনাদের হস্তক্ষেপ কামনা করছে কচুয়ার জনগন , আর আজকের পর আওয়ামীলীগে আরেকটি শুদ্ধি অভিজানের ধার উম্মোচিত হলো!

আজ ২০শে নভেম্বর কাদলা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি পদে ৮নং কাদলা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সফল সাধারণ সম্পাদক ও ডঃমহীউদ্দীনখান আলমগীর এম,পির স্নেহভাজন জাহাঙ্গীর আলম নির্বাচিত!

জনাব জাহাঙ্গীর আলম রঘুনাথপুর হাইস্কুল জীবন থেকেই ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত থেকে দীর্ঘদিন থানা ছাত্রলীগ এর সদস্য ও থানা যুবলীগের সদস্য থেকে দলের কঠিন সময়ে কাজ করেন।
অতঃপর পরিবারের বড় ছেলে হিসেবে জীবিকার সন্ধানে ১৯৯০এর শুরুতে শীপে চাকুরি জীবন শুরু করেন।
বাংলাদেশ আওয়ামিলীগের রাজনীতির নেশায় শীপের চাকুরিতেও শ্রমিকলীগের সদস্য হয়ে কাজ করেন, অবশেষে চাকুরি ছেড়ে ১৯৯৪ তে কুয়েতে চলে যান, কুয়েত আওয়ামীলীগের সদস্য হিসেবেও বেশ কিছুদিন কাজ করেন।
অতঃপর চুড়ান্তভাবে সিদ্ধান্ত নিয়ে আওয়ামীলীগের প্রতি ভালোবাসা ও পারিবারিক রাজনৈতিক কারনেই চলে এসেছেন নিজ ভুমি বাংলাদেশে।

অতঃপর কচুয়া ৮নং কাদলা ইউনিয়নে বর্তমানে ইউনিয়ন আওয়ামিলীগ সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন এবং নৌকার পক্ষে গত তিনটি জাতীয় নির্বাচন,দুই দুইটি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ও দুইটি উপজেলা নির্বাচনে কচুয়ার সাংসদ জননেতা ডঃমহীউদ্দীন খান আলমগীর এবং চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম লালুর দিক নিরদেশনা নিয়ে দীর্ঘদিন সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। যেহেতু উক্ত ইউনিয়ন স্থানীয় সাংসদের তাই সাংসদের সাথে কাজ করার সুজুগ হওয়ায় তিনি গৌরববোদ করছেন এবং আগামী কাল ডঃমহীউদ্দীনখান আলমগীর এম,পির আশির্বাদ নিয়ে কাউন্সিলরদের কাছে ভোট চাইবেন সভাপতি প্রা্থী জাহাঙ্গীর আলম!

তিনি এই প্রতিবেদককে বলেন,কাদলা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের দায়িত্ব পালনকালীন সময়ে কিছু ভুলত্রুটি আমার থাকতে পারে,দায়িত্ব পালনে সবাইকে খুশি রেখে কাজ করা সম্ভব নয় বিধায়, আমি তার উর্ধে নই, কিন্তু পরিক্ষীত আওয়ামীলীগ পরিবার ও আওয়ামী পরিবারের সন্তান হিসেবে বন্ধু, আত্মীয়গন এবং স্থানীয় আওয়ামীলীগের সদস্য ও সহজোগী সংঘটনের করমীগন আমাকে সভাপতি পদে প্রাথি হতে অনুপ্রানিত করেন বিধায় আমি আসন্ন ইউনিয়ন কাউন্সিলে ৮নং কাদলা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি প্রথি হয়ে আজ আমি নির্বাচিত এবং সকল কাউন্সিলরদের ধন্যবাদ !

কাদলা ইউনিয়ন ও কাদলা জনবহুল গ্রামের আওয়ামী পরিবারের সন্তান যাদের চৌদ্দসিড়ি আওয়ামীলগকে ভালবাসে এবং আওয়ামীলীগের জন্য যেকোন ত্যাগ শীকার এবং অনেক বাধা অতিক্রম করে অতীতে বিভিন্ন সাংগঠনিক পরীক্ষায় রীতিমতো জয় লাভ করেন।
আমি ৮ং কাদলা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি সভাপতি হিসেবে অতীতের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে ডঃমহীউদ্দীন খান আলমগীর এম পি ও স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম লালুর দিক নিরদেশনা অনুযায়ী কাদলা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ ও ছাত্রলীগ,যুবলীগ, সেচ্ছাসেবকলীগ সহ সকল সহজোগী সংঘটন এবং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের করমীদের সাথে নিয়ে একাত্মতা পোসন করে সংঘটন কে আরোও শক্তিশালী ও গতিশীল করতে বংগবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে জননেত্রী শেখ হাসিনা ও বাংলাদেশ আওয়ামিলীগের ভিশন-২১ও ৪১ কে বাস্তবায়িত করতে বংগবন্ধুর দৌহিত্র ডিজিটাল বাংলাদেশের রুপকার জননেত্রী শেখ হাসিনার তনয়া সজীব ওয়াজেদ জয়ের পরিকল্পনা ও সেবা কে ঘরে ঘরে পৌছে দেয়ার জন্য একজন সাধারন করমী হয়ে আজীবন দলের জন্য কাজ করে যাব ইনশাআল্লাহ। আমি ৮ং কাদলা ইউনিয়নের সকল কাউন্সিলর ও আওয়ামী করমিদের সহজোগিতা কামনা করছি। অমর হোক আমার দেশ বংগবন্ধুর বাংলাদেশ।জয়বাংলা,জয় বংগবন্ধু।

কচুয়া কাদলা গ্রামে আজ আরো একটি বিজয় হলো! কাদলা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ কাউন্সিলর ও নির্বাচিতদের(সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম ও সাধারণ সম্পাদক আবুল হাসনাত ফরহাদ) ধন্যবাদ।

কাদলা ইউনিয়ন সকল কাউন্সিলর ও উদিয়মানদের বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব গাজী সোলায়মান ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা, আপনাদের আগামী দিনে পথচলা সুন্দর ও শুভ হউক। জয়বাংলা। জয় বংগবন্ধু।

ধন্যবাদান্তে এডভোকেট শাখাওয়াত হোসেন টিটো, সম্পাদক কচুয়ারডাক, চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা গাজী সোলায়মান ফাউন্ডেশন, সাবেক সরকারি আইনজীবী প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনাল ঢাকা, আইনজীবী ১/১১ ডঃ মহীউদ্দীনখান আলমগীর এম পি।

64 total views, 3 views today