আদালতের নিষেধাজ্ঞার ফলে কচুয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের কাউন্সিল প্রকল্প ভেস্তে গেল!

কচুয়ারডাক নিউজ ডেস্কঃ আদালতের নিষেধাজ্ঞার ফলে কচুয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের কাউন্সিল প্রকল্প ভেস্তে গেল!

আজ কচুয়া সহকারী জজ আদালত চাঁদপুর থেকে অবশেষে কচুয়া উপজেলা আওয়ামীলীগ সকল কাজের উপর আদালত থেকে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হল। কপাল খুলতে পারে যারা ১-১২ ইউনিয়নে নির্বাচিত হতে পারেন নি, সকল ইউনিয়নে পুনরায় কাউন্সিল হওয়ার সম্ভাবনা,আদালত অবমাননার অপরাধ প্রমানিত হলে দন্ডিত হতে পারেন কচুয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতৃত্ব
…বিস্তারিত, চোখ রাখুন কচুয়ারডাক সত্য প্রকাশে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ!

কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের ইউনিয়ন সম্মেলনকে ঘিরে নাটকীয়তার মোর!
রেজাউল মাওলা হেলাল মুন্সি সহ ১ ও ৩নং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি বাদী হয়ে দেওয়ানি মামলায়,
কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদকে আগামী ৩ কার্য দিবসের মধ্যে আদালতে হাজিরের নির্দেশ। গত ২৪/১১/২০১৯ ইং তারিখ রোজ রবিবার কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আইয়ুব আলী পাটোয়ারী ও সাধারণ সম্পাদক সোহরাব হোসেন সোহাগ বিগত ০১/০৩/২০১৭ ইং তারিখ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কর্তৃক প্রেরিত চিঠির আদেশ অমান্য করে কচুয়া উপজেলার ১২নং আশরাফপুর ইউনিয়ন, ১১নং গোহাট দক্ষিণ ইউনিয়ন, ৩ নং বিতারা ইউনিয়ন ও ১নং সাচার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও কচুয়া থানা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি শাহাদাত হোসেন মিয়া, সহ-সভাপতি ফজলে কাদের মুকুল, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক খোরশেদ আলম মিয়া সহ ৯জনকে কচুয়া থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অমান্য করে দলীয় পদ হইতে অব্যাহতি দেওয়া এবং কচুয়া পৌরসভার কমিটি ভেঙ্গে আহ্বায়ক কমিটি গঠন পরবর্তিতে কোন রকমের সম্মেলনের আয়োজন না করে পূণাঙ্গ কমিটি গঠন ১/৩/১১/১২ নং ইউনিয়নে দুটি করে কমিটি বিদ্যমান সহ সংগঠনে চরম বিশৃঙ্খলা অসাংগঠনিক নীতি আর্দশ গঠনতন্ত্র বিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত সহ স্থানীয় সরকার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সরাসরি দলীয় নৌকা মার্কার প্রার্থীর প্রকাশ্যে বিরোধিতা করায় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান শিশিরের নেতৃত্বে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের বেশির ভাগ নেতা আইয়ুব আলী পাটোয়ারী ও সোহরাব হোসেন সোহাগ কে অনাস্থা দিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, সাধারণ সম্পাদক, যুগ্ম সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক বরাবর আবেদন করিলে জেলা আওয়ামী লীগের গোপন সার্ভের মাধ্যমে সত্যতা পায় এবং সাংগঠনিক নিয়মনীতি মেনে সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য বার বার নির্দেশ দিলেও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক কোন তোয়াক্কা করে নাই উপরোক্ত দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে দলীয় পদের ফরম বিক্রি বাবদ ৫৫০০ টাকা নিয়েছেন, দলীয় কার্যালয়ে কমিটি গঠন করেছেন এবং ১ ও ৩নং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মিজানুর রহমান ও হারুন পাটোয়ারীর করা ওয়ার্ড কমিটি ও কাউন্সিল তালিকায় অনুমোদন না নিয়ে নিজের পছন্দ মত লোক দিয়ে কমিটি সাজাইয়া ২১/১১/২০১৯ ও ২৩/১১/২০১৯ ইং তারিখ সম্মেলনের আয়োজন করে এবং ১২নং আশরাফপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক রেজাউল মাওলা হেলাল মুন্সি কর্তৃক গঠিত ওয়ার্ড কমিটি ও কাউন্সিলর তালিকা উপজেলা আওয়ামী লীগ জমা না নিয়ে ভিন্ন কমিটি দিয়ে কাউন্সিলর তালিকা তৈরি ২৬/১১/২কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদকের সকল ধরনের কার্যক্রম হইতে বিরত থেকে আগামী ৩ কার্য দিবসের মধ্যে আদালতে হাজিরের নির্দেশ।

এর আগে গত ২৪/১১/২০১৯ ইং তারিখ রোজ রবিবার কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আইয়ুব আলী পাটোয়ারী ও সাধারণ সম্পাদক সোহরাব হোসেন সোহাগ বিগত ০১/০৩/২০১৭ ইং তারিখ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কর্তৃক প্রেরিত চিঠির আদেশ অমান্য করে কচুয়া উপজেলার ১২নং আশরাফপুর ইউনিয়ন, ১১নং গোহাট দক্ষিণ ইউনিয়ন, ৩ নং বিতারা ইউনিয়ন ও ১নং সাচার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও কচুয়া থানা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি শাহাদাত হোসেন মিয়া, সহ-সভাপতি ফজলে কাদের মুকুল, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক খোরশেদ আলম মিয়া সহ ৯জনকে কচুয়া থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অমান্য করে দলীয় পদ হইতে অব্যাহতি দেওয়া এবং কচুয়া পৌরসভার কমিটি ভেঙ্গে আহ্বায়ক কমিটি গঠন পরবর্তিতে কোন রকমের সম্মেলনের আয়োজন না করে পূণাঙ্গ কমিটি গঠন ১/৩/১১/১২ নং ইউনিয়নে দুটি করে কমিটি বিদ্যমান সহ সংগঠনে চরম বিশৃঙ্খলা অসাংগঠনিক নীতি আর্দশ গঠনতন্ত্র বিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত সহ স্থানীয় সরকার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সরাসরি দলীয় নৌকা মার্কার প্রার্থীর প্রকাশ্যে বিরোধিতা করায় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান শিশিরের নেতৃত্বে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের বেশির ভাগ নেতা আইয়ুব আলী পাটোয়ারী ও সোহরাব হোসেন সোহাগ কে অনাস্থা দিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, সাধারণ সম্পাদক, যুগ্ম সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক বরাবর আবেদন করিলে জেলা আওয়ামী লীগের গোপন সার্ভের মাধ্যমে সত্যতা পায় এবং সাংগঠনিক নিয়মনীতি মেনে সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য বার বার নির্দেশ দিলেও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক কোন তোয়াক্কা করে নাই উপরোক্ত দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে দলীয় পদের ফরম বিক্রি বাবদ ৫৫০০ টাকা নিয়েছেন, দলীয় কার্যালয়ে কমিটি গঠন করেছেন এবং ১ ও ৩নং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মিজানুর রহমান ও হারুন পাটোয়ারীর করা ওয়ার্ড কমিটি ও কাউন্সিল তালিকায় অনুমোদন না নিয়ে নিজের পছন্দ মত লোক দিয়ে কমিটি সাজাইয়া ২১/১১/২০১৯ ও ২৩/১১/২০১৯ ইং তারিখ সম্মেলনের আয়োজন করে এবং ১২নং আশরাফপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক রেজাউল মাওলা হেলাল মুন্সি কর্তৃক গঠিত ওয়ার্ড কমিটি ও কাউন্সিলর তালিকা উপজেলা আওয়ামী লীগ জমা না নিয়ে ভিন্ন কমিটি দিয়ে কাউন্সিলর তালিকা তৈরি ২৬/১১/২০১৯ ইং তারিখ সম্মেলন করার ঘোষণা দেন বিধায় রেজাউল মাওলা হেলাল মুন্সি সহ ১ ও ৩নং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি বাদী হয়ে আজ কচুয়া সিনিয়র সহকারী জজ মিথিলা রাণী দাশের আদালতে কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আইয়ুব আলী পাটোয়ারী ও সাধারণ সম্পাদক সোহরাব হোসেন সোহাগ কে মূল বিবাদী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক কে মোকাবেলা বিবাদী করে মামলা দায়ের করিলে আদালত বাদী পক্ষের দাখিলীয় কাগজপত্র দেখে, বক্তব্য শুনে সন্তুষ্ট হয়ে মামলাটি সরাসরি আমলে নেয়। মামলা নং দেওয়ানী ২৫৮/১৯ কচুয়া থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক কে আগামী ৩ কার্য দিবসের মধ্যে আদালতে হাজির হইয়া অসাংগঠনিক ও কেন্দ্রীয় ও জেলা আওয়ামী লীগের নির্দেশনা অমান্যের ব্যাখ্যা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। আদালতে বাদী পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন বিজ্ঞ আইনজীবী মোহাম্মদ আলী চৌধুরী সহ প্রায় ২০জন আইনজীবী। এই আদেশের ফলে কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আইয়ুব আলী পাটোয়ারী ও সাধারণ সম্পাদক সোহরাব হোসেন সোহাগ আদালতের অনুমতি ছাড়া আর সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনার সুযোগ রইলনা। বিজ্ঞ আদালতের প্রচারিত আদেশ হল বাদী পক্ষের প্রার্থীত মতে কেন ১ ও ২নং বিবাদীদের বিরুদ্ধে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আদেশ প্রদান করা হইবেনা তত মর্মে নোটিশ প্রাপ্তির ৩ দিনের মধ্যে কারন দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হলো।
#মূল মামলার তারিখ ১৯/০১/২০২০ ধার্য করেন। সহকারী জজ মিথিলা রাণী দাশের আদালতে কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আইয়ুব আলী পাটোয়ারী ও সাধারণ সম্পাদক সোহরাব হোসেন সোহাগ কে মূল বিবাদী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক কে মোকাবেলা বিবাদী করে মামলা দায়ের করিলে আদালত বাদী পক্ষের দাখিলীয় কাগজপত্র দেখে, বক্তব্য শুনে সন্তুষ্ট হয়ে মামলাটি সরাসরি আমলে নেয়। মামলা নং দেওয়ানী ২৫৮/১৯ কচুয়া থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক কে আগামী ৩ কার্য দিবসের মধ্যে আদালতে হাজির হইয়া অসাংগঠনিক ও কেন্দ্রীয় ও জেলা আওয়ামী লীগের নির্দেশনা অমান্যের ব্যাখ্যা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। আদালতে বাদী পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন বিজ্ঞ আইনজীবী মোহাম্মদ আলী চৌধুরী সহ প্রায় ২০জন আইনজীবী। এই আদেশের ফলে কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আইয়ুব আলী পাটোয়ারী ও সাধারণ সম্পাদক সোহরাব হোসেন সোহাগ আদালতের অনুমতি ছাড়া আর সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনার সুযোগ রইলনা। বিজ্ঞ আদালতের প্রচারিত আদেশ হল বাদী পক্ষের প্রার্থীত মতে কেন ১ ও ২নং বিবাদীদের বিরুদ্ধে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আদেশ প্রদান করা হইবেনা তত মর্মে নোটিশ প্রাপ্তির ৩ দিনের মধ্যে কারন দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হলো।
#মূল মামলার তারিখ ১৯/০১/২০২০ ধার্য করেন।

81 total views, 1 views today