২০২২ বিশ্বকাপ যুক্তরাষ্ট্রে!

বিশ্বকাপ আয়োজনের স্বত্ব পেতে ঘুষ দেওয়ার ব্যাপারে অভিযোগ উঠেছে রাশিয়া ও কাতারের বিপক্ষে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে বিশ্বকাপ আয়োজক হওয়া থেকে বঞ্চিত হবে কাতার, এমনই বিশ্বাস সাবেক ফিফা সভাপতি সেপ ব্ল্যাটারের। সেক্ষেত্রে পরের বিশ্বকাপের আয়োজক যুক্তরাষ্ট্রের ভাগ্য সুপ্রসন্ন হতে পারে বলে মত দেন তিনি।

গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের ডিপার্টমেন্ট অফ জাস্টিস রাশিয়া ও কাতারের বিপক্ষে ঘুষ দিয়ে বিশ্বকাপ আয়োজনে স্বত্ব পাওয়ার নির্বাচনে ভোট কেনার অভিযোগ আনে। তবে দুই পক্ষই বর্তমানে এমন অভিযোগ জোর গলায় প্রত্যাখ্যান করেছে।

অভিযোগে বলা হয়, সাবেক ব্রাজিল ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি রিকার্ডো টিক্সেইরা, সাবেক কনমেবল সভাপতি নিকোলাস লিওজ এবং তাদের একজন সহযোগী কাতারকে ভোট দেওয়ার জন্যে ঘুষ নিয়েছিলেন।

অভিযোগ প্রমাণ হলে আয়োজক স্বত্ব হারানোই হবে কাতারের নিয়তি। সেক্ষেত্রে বিশ্বকাপের আয়োজক কে হবে এ ব্যাপারে সাবেক ফিফা সভাপতি বলেন, ‘জার্মানি করতে পারত কিন্তু এটা হলে টানা দুটো বিশ্বকাপ ইউরোপে হয়ে যায়। আর তাই ইউরোপের কোনো দেশ প্রথম পছন্দের তালিকায় থাকবে না।’

যুক্তরাষ্ট্রের এই অভিযোগ পরবর্তী বিশ্বকাপ আয়োজনের জোর সম্ভাবনাই তৈরি করেছে দেশটির। ব্ল্যাটারের ভাষ্য, ‘২০২৬ বিশ্বকাপের আয়োজক যুক্তরাষ্ট্র কাজটা করতে পারে। এ যোগ্যতা তাদের আছে, এটা রকেট-বিজ্ঞান নয়। জাপানও করতে পারে, ২০২২ বিশ্বকাপ আয়োজনে তাদেরও সম্ভাবনা আছে।’

তবে যুক্তরাষ্ট্রকে ২০২২ বিশ্বকাপ আয়োজনের ভার দিলে নতুন আয়োজক খুঁজতে হবে পরের বিশ্বকাপের জন্যে। বর্তমান সূচি অনুযায়ী মেক্সিকো ও কানাডার সঙ্গে মিলে ২০২৬ বিশ্বকাপ আয়োজনের কথা যুক্তরাষ্ট্রের। সে আসরেই প্রথমবারের মতো ৪৮ দলের বিশ্বকাপ আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল ফিফা।